Ads1

আজ মহান বুদ্ধিজীবী দিবস

 

আজ মহান বুদ্ধিজীবী দিবস

সোহানা সরকার::

একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধের বিজয়ের ঠিক আগে দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের হারানোর দিন আজ। 

১৯৭১ সালের এই দিনে দখলদার পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসর রাজাকার, আলবদর, আল-শামস পরিকল্পনা করে দেশের বুদ্ধিজীবীদের ওপর এই হত্যাযজ্ঞ চালায়। এতে শহীদ হন অধ্যাপক মুনীর চৌধুরী, সিরাজুদ্দীন হোসেন, মোফাজ্জল হায়দার চৌধুরী, শহীদুল্লাহ কায়সার, ডাক্তার ফজলে রাব্বী, নিজাম উদ্দিন আহমেদ, আনোয়ার পাশা, সৈয়দ নাজমুল হক, সৈয়দ আব্দুল মান্নান, ডাক্তার আবুল কালাম আজাদ, গিয়াসউদ্দিন আহমেদ, ডাক্তার আলীম চৌধুরী, রশিদুল হাসান, ডা. এম এ খাঁয়ের, জহিরুল হক, সেলিনা পারভীন সহ আরো অনেকে।

স্বাধীন বাংলাদেশের চূড়ান্ত বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে তারা বাংলাদেশকে মেধাশূন্য করার লক্ষ্যে এই হত্যাযজ্ঞ চালায়। পরবর্তীতে মিরপুর ও রায়েরবাজারের বিভিন্ন জায়গায় শহীদদের গণকবর পাওয়া যায়।  ১৬ই ডিসেম্বর মুক্তিযুদ্ধের বিজয় অর্জনের পর নিকটাত্মীয়রা মিরপুর ও রাজার বাগ বধ্যভূমিতে স্বজনদের মৃতদেহ শনাক্ত করেন।  অনেকের দেহে আঘাতের চিহ্ন,  হাত-পা বাঁধা, কারো শরীরে একাধিক গুলি চিহ্ন, কাউকে আবার একাধিক গুলি করে  হত্যা করা হয়েছিল ধারালো অস্ত্র দিয়ে এবং জবাই করা হয়েছিল। যা থেকে হত্যার পূর্বে তাদের নির্যাতন করা হয়েছিল সে তথ্য বের হয়ে আসে। 

এবার বিজয় সুবর্ণজয়ন্তীতে দিবসটি বিশেষভাবে পালন করা হচ্ছে।  সকালে মিরপুর ও রায়েরবাজার বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে দেশের স্বাধীনতার জন্য আত্মোৎসর্গকারীদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ এর মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।  দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

 রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদ বাণীতে  বলেছেন,

" শহীদ বুদ্ধিজীবীদের আদর্শ অনুসরণ করে অসাম্প্রদায়িক ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাভিত্তিক সুখী সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়তে পারলেই তাদের আত্মত্যাগ সার্থক হবে। "পৃথক  এক বাণীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন,

" দলমত নির্বিশেষে সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে একাত্তরের ঘাতক মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধী, জামায়াত, মৌলবাদী চক্রের রাষ্ট্র ও গণতন্ত্রবিরোধী সব ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান।" এসময় আরো বলেন, "শহীদ বুদ্ধিজীবীদের আত্মত্যাগ জাতি চিরদিন গভীরভাবে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে। "

এইদিকে দিবসটি  উপলক্ষে  মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীর নেতৃত্বে পরিবারের সদস্যদের পুষ্পস্তবক অর্পণ কর্মসূচি পালন করা হয়।  এছাড়া দেশের সব জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে আলোচনা সভা আয়োজন করা হবে।  বাংলাদেশ বেতার, বাংলাদেশ টেলিভিশন সহ অন্যান্য বেসরকারি টিভি চ্যানেলে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে । সকাল ৮ টা ৩০  মিনিটে বঙ্গবন্ধু ভবনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে এবং সকাল ৯ টায় রায়েরবাজার বধ্যভূমিতে শ্রদ্ধা অর্পন কর্মসূচি রয়েছে।


জাফলং নিউজ/শুভ/সোহানা