Ads1

উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ -JaflongNews

উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড়  জাওয়াদ -JaflongNews


নিজস্ব প্রতিবেদক::

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ এর অগ্রবর্তী অংশের  প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশে।বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় গভীর সঞ্চালনশীল মেঘ সৃষ্টি হচ্ছে।শুরু হয়েছে হালকা বৃষ্টিও। সর্বোচ্চ ৫০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর।

ঘূর্ণিঝড় টি বর্তমানে সুস্পষ্ট লঘুচাপ আকারে পশ্চিমবঙ্গের হলদিয়া উপকূল দিয়ে স্থলভাগের প্রবেশ শুরু করেছে। এটি আজ পশ্চিমবঙ্গ হয়ে সাতক্ষীরা জেলার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে। এর প্রভাবে সারা দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বাংলাদেশের পূর্বদিকের বাকি জায়গাগুলোতেও মাঝারি থেকে ভারি বর্ষণের সম্ভাবনা রয়েছে।এই অবস্থায় সতর্ক-সংকেত বেড়েছে। 

বাংলাদেশের সমুদ্র বন্দর সমূহকে দুই নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত নামিয়ে, তিন নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া বিভাগ। শক্তি ক্ষয় বা সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়ে উরিষ্যা উপকূল ধরে পশ্চিমবঙ্গ হয়ে  বাংলাদেশ এ প্রবেশ করবে ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ।ঘূর্ণিঝড়ের  প্রভাবে বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় বৃষ্টি শুরু হয়েছে। শনিবার সকাল থেকেই ঢাকার আকাশ মেঘে ঢাকা। জাওয়াদ এর প্রভাবে সোমবার সকাল থেকে উপকূলীয় এলাকা ছাড়াও ঢাকায়সহ দেশের বিভিন্ন  জায়গায়  বৃষ্টি হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া বিদরা। 

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২কিলোমিটার যা দমকা বা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি  পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের কাছে সাগর খুবই উত্তাল রয়েছে বলে  বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

এতে আরও বলা হয় এর প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালার সৃষ্টি হয়েছে এর ফলে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকার ঘণ্টায় ৪০ থেকে ৫০ বেগে অস্থায়ী দমকা থেকে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বৃষ্টি বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সঙ্কেত এর পরিবর্তে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। 

এছাড়াও উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে। তাদেরকে  গভীর সাগরে বিচরণ না করার জন্য ও বলা হয়েছে আবহাওয়ার বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে।

জাফলং নিউজ/ডেস্ক/এফ এস