Ads1

জ্বর-সর্দি মানেই করোনা নয়, আতঙ্কিত হওয়ার কিছু না


ঝড়-বাদলের দিন শুরু হয়েছে। দিনের একটা সময় অসহ্য গরম আর একটা সময়ে বেশ কমে যাচ্ছে তাপমাত্রা। এদিকে বৃষ্টিতে ভিজেও জ্বর হচ্ছে অনেকের। এটা আবার করোনাকাল। অনেকেই সামান্য জ্বর এলেই ভয় পেয়ে যাচ্ছি করোনা হয়েছে মনে করে।

কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, জ্বর মানেই করোনা নয়, হতে পারে ইনফ্লুয়েঞ্জার মতো সাধারণ জ্বরও।  ঋতু পরিবর্তনের সাধারণ জ্বর এবং করোনার কারণে জ্বরের মধ্যে অনেক পার্থক্য। জ্বর হলে ভয় পাওয়া বা অযথা আতঙ্কিত হওয়া উচিত নয়। মনে রাখা দরকার, মন দুর্বল হয়ে গেলে রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা কমে যায়। ভিটামিন প্রোটিন জাতীয় খাবার বেশি করে খাওয়া প্রয়োজন।

চিকিৎসকদের মতে, সামান্য জ্বর, সর্দি-কাশিতে ভাববেন না যে, কোভিড-১৯ ই হয়েছে। সাধারণ জ্বর বা ইনফ্লুয়েঞ্জার উপসর্গের সঙ্গে করোনার উপসর্গ প্রায় এক হলেও, খুব সূক্ষ্ম কিছু পার্থক্যের মাধ্যমে এদের আলাদা করা সম্ভব।

জেনে নিন, করোনা এবং ইনফ্লুয়েঞ্জার পার্থক্যগুলো ; ইনফ্লুয়েঞ্জার উপসর্গ

হালকা জ্বর ও গা ম্যাজম্যাজে ভাব দেখা দেয়। জ্বর সাধারণত দুই থেকে তিন দিন থাকে এর পরে কমে আসে। সামান্য সর্দি-কাশি থাকতে পারে। সারা গায়ে ব্যাথা ও মাথার যন্ত্রণা হয়।

এবার মহামারি করোনার উপসর্গ; জ্বর, শুকনো কাশি, শারীরিক দুর্বলতা, গলা ব্যথা থাকে সাধারণত। এছাড়াও মাথা ও শরীরের অসহ্য যন্ত্রণা, পেট খারাপ, খাবারের স্বাদ ও ঘ্রাণ শক্তি হারিয়ে ফেলা, শ্বাসকষ্ট ও ত্বকে র্যাশ দেখা যেতে পারে।

করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার দিন থেকে মাত্র পাঁচ দিনের মধ্যেই লক্ষণ দেখা দেয়। তবে শিশুদের ক্ষেত্রে এই লক্ষণ দেখা দিতে ২১ দিন পর্যন্তও সময় লাগতে পারে। জ্বর হলে আতঙ্কিত না হয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোনো ওষুধ খাওয়া উচিত নয়।